সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ:
পঞ্চগড় পৌরসভা (৬ষ্ট তলা) সুপার মার্কেটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন জোন ভিত্তিক লকডাউনে যাচ্ছে কুড়িগ্রাম লালমনিরহাটে ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু কুড়িগ্রামে ১১’শ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নওগাঁয় সাংবাদিক আব্বাস আলীর উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার কাঁচিচরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “বিবেক ২১”এর বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন গোয়ালঘর থেকে কৃষকের মরদেহ উদ্ধার কুষ্টিয়ায় স্বামী-স্ত্রী ও ছেলেকে রাস্তায় গুলি করে হত্যা কুড়িগ্রামে মাসিক কল্যাণ সভায় টানা তৃতীয় বারের শ্রেষ্ঠ ওসি উলিপুর থানার ইমতিয়াজ কবীর

মামলা তুলে নিতে বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি

লালমনিরহাট প্রতিনিধি
  • Update Time : রবিবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২০

লালমনিরহাটের হারাটিতে ধর্ষণের চেষ্টা শিকার মামলা করায় নির্যাতন ও মিথ্যা অপবাদ লজ্জ্বায় কামরুনাহার জুথি (১৪) কে কি হত্যা করা হয়েছে না কি ধর্ষণের চেষ্টা ও মিথ্যা অপবাদ লজ্জ্বা সইতে না পেরে নিজেই আত্মহত্যা করেছে?

এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে নানান জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় সদর থানা পুলিশ ২জনকে গ্রেফতার করায় অন্যসব আসামীরা মামলা তুলতে বাদীকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। ফলে বাদী কামরুজ্জামান নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার হারাটি ইউনিয়নের কাজীর চওড়া গ্রামের অসহায় ভ্যানচালক কামরুজ্জামান। তার প্রথম স্ত্রীর ঘরে কামরুনাহার জুথি নামক একটি মেয়ে সন্তান ছিল। সেই মেয়ে সন্তানকে ছেড়ে কামরুজ্জামানের প্রথম স্ত্রী প্রতিবেশী চাচা শ্বশুর একই গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে আনোয়ার হোসেনের সাথে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন। পরে কামরুজ্জামান অন্যত্র আবারও বিয়ে করেন। ভ্যান চালিয়ে উপার্জিত টাকায় সুখে-দুঃখে মেয়ে জুথিকে নিয়ে চলছে কামরুজ্জামানের জীবন সংসার। সৎ মায়ের আচলে ছোট থেকে বেড়ে উঠা কামরুনাহার জুথি প্রায় ১৪ বছর বয়সে পা রাখেন। বাবার অভাবের সংসারে প্রাথমিক বিদ্যালয় পেরিয়ে যেতে না পারলেও দেখতে খুবেই সুন্দর ছিল জুথি। কিন্তু চলতি অক্টোবর মাসে একই গ্রামের মোহম্মদ আলী হাগুড়ার ছেলে হামিদুল ইসলাম ও আমিনুল হকের ছেলে নুর ইসলামের কুদৃষ্টিতে পড়ে জুথি। সুযোগ বুঝে দু’জন মিলে জুথিকে কু-প্রস্তাব দেন। এতে জুথি রাজি না হওয়ায় তারা দু’জনেই তাকে জোড়পূর্বক ধর্ষণের চেষ্ঠা করেন। এ ঘটনাটি জুথি তার বাবা কামরুজ্জামানকে জানালে তিনি প্রতিবেশীদের কাছে বিচার চান। কিন্তু প্রতিবেশীদের কাছে কোন বিচার না পেয়ে কামরুজ্জামান লালমনিরহাট সদর থানায় হামিদুল ও নুর ইসলামের বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্ঠা একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি পুলিশ আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করেন। এতে হামিদুল ইসলাম ও নুর ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে।

এমনকি হামিদুল, নুর ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, এরশাদ হোসেন, শাহ আলম, আলম সরকার, আমিনুল ইসলামসহ অজ্ঞাত নামীয় নারীরা মিলে জুথিকে মারপিট করেন এবং মিথ্যা নষ্টা মেয়ে বলে অপবাদ দেন। এসব অপবাদ সইতে না পেরে মারপিটের ৪/৫ দিন পর জুথি মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) রাত ৯টায় তার দাদীর ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন। এলাকাবাসী কেউ কেউ বলছেন, জুথিকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যা মামলা থেকে বাচতে জুথির গলায় ওড়না পেচিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। পরে লালমনিরহাট সদর থানা পুলিশ খবর পেয়ে জুথির লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠান। ময়না তদন্ত শেষে পুলিশ জুথির লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেন।

এ ঘটনাও জুথির বাবা কামরুজ্জামান সদর থানায় ১০ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যার অভিযোগ দায়ের করে। পরে থানা পুলিশ এক নারী ও এক পুরুষকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

কামরুনাহার জুথির বাবা কামরুজ্জামান বলেন, আমার মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় আমার মেয়ের নামে মিথ্যা অপবাদ ও মারপিট করায় ক্ষোভে আত্মহত্যা করেছে। আমি থানায় মামলা করেছি। এতে ২জন গ্রেফতার হলেও বাকী ৮জন প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে। যাদের মিথ্যা অপবাদে আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে আমি তাদের আইনের মাধ্যমে বিচার চাই। আসামীরা গ্রেফতার না হওয়ায় আমাকে নানান ভাবে মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছেন। আমি নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহা আলম বলেন, ধর্ষণের চেষ্টা মামলায় ইতিমধ্যে ২ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত কেউ ছাড় পাবে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 dainikjonokotha.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com