রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৩:৩৮ অপরাহ্ন

রংপুরে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে চোখ ও গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়া দিয়ে নির্যাতন

জুয়েল বাবু, রংপুর ব্যুরো প্রধান
  • Update Time : বুধবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২১

চিকিৎসার নামে রোগীদের সাথে অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে রংপুরের একটি মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, নির্যাতনের পর উলঙ্গ করে গোপনাঙ্গ ও চোখে মরিচের গুঁড়া দেয়াসহ মল-মুত্র খাওয়ানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন চিকিৎসাধীন রোগীরা। নির্যাতনের বিষয়টি জানতে পেড়ে ওই মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রটি ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেন রোগীদের আত্নীয় স্বজনরা।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) রাতে রংপুর নগরীর মেডিকেল পুর্বগেট এলাকায় অবস্থিত প্রধান মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র নামে একটি প্রতিষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে লোহার পাইপ দিয়ে এক রোগীকে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। বিষয়টি জানতে পেড়ে ওই রোগীর স্বজনরা সেখানে যান। এ সময় ওই প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসাধীন রোগীরা তাদের ওপর চলা শারীরিক নির্যাতনের ক্ষত দেখিয়ে তাদের দ্রুত উদ্ধারের আকুতি জানান পরিবারের কাছে।

রোগীরা জানান, ওই প্রতিষ্ঠানের লোকজন প্রায়ই লোহার পাইপ দিয়ে তাদের ওপর  নির্যাতন চালান। এতে অনেকের কোমর, ও হাঁটুতে রক্তাক্ত জখম হয়। শুধু তাই নয়, অনেককে উলঙ্গ করে নির্যাতনের পর গোপানাঙ্গ ও চোখে মরিচের গুঁড়া দেওয়ারও অভিযোগ করেন চিকিৎসাধীন রোগীরা। এমনকি নির্যাতনের পাশাপাশি মল-মুত্র খাওয়ানোর অভিযোগ করেন কেউ কেউ। লোমহর্ষক এই নির্যাতনের খবর পেয়ে অন্যান্য রোগীর আত্নীয় স্বজনরাও রাতেই ছুটে আসেন মাদকাসক্তি কেন্দ্রে। তারা একত্রিত হয়ে কেন্দ্রের অভিযুক্ত লোকজনের ওপর চড়াও হয়।

এ সময় পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে অভিযুক্তরা সুকৌশলে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। খবর পেয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারাও সেখানে আসেন। ওই কেন্দ্রে মোট ২১ জনকে ছোট্ট দুটি রুমে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গাদাগাদি করে রাখা হয়েছিল। এক সময় ১০ জন রোগীর চিকিৎসার অনুমতিসহ প্রতিষ্ঠানটির লাইসেন্স ছিল। কিন্তু পরে আর নবায়ন করা হয়নি বলে জানান কর্মকর্তারা।

এবিষয়ে রংপুর মহানগর পুলিশের অপরাধ বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শহিদুল্লাহ কায়সার জানান, শারীরিক নির্যাতনের আলামত পাওয়ায় রোগীদের সেখান থেকে উদ্ধার করে উপস্থিত স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মাদকাসক্তি নিরাময়ের নামে অপচিকিৎসাসহ বেশকিছু অনিয়ম থাকায় কেন্দ্রটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 dainikjonokotha.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com