সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ:
পঞ্চগড় পৌরসভা (৬ষ্ট তলা) সুপার মার্কেটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন জোন ভিত্তিক লকডাউনে যাচ্ছে কুড়িগ্রাম লালমনিরহাটে ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু কুড়িগ্রামে ১১’শ ভূমিহীন পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নওগাঁয় সাংবাদিক আব্বাস আলীর উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন চাষিদের বিক্ষোভের মুখে হিমাগারের অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার কাঁচিচরে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “বিবেক ২১”এর বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালন গোয়ালঘর থেকে কৃষকের মরদেহ উদ্ধার কুষ্টিয়ায় স্বামী-স্ত্রী ও ছেলেকে রাস্তায় গুলি করে হত্যা কুড়িগ্রামে মাসিক কল্যাণ সভায় টানা তৃতীয় বারের শ্রেষ্ঠ ওসি উলিপুর থানার ইমতিয়াজ কবীর

চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র রক্ষায় নদে বালু উত্তোলন বন্ধের তাগিদ দিলেন- পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

আবু জাফর সোহেল রানা, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০

কুড়িগ্রামে ৫দফা বন্যায় জেলার ধরলা,ব্রহ্মপুত্র এবং তিস্তা নদীর ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি । নদী পরিদর্শনকালে সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নে বন্যা কবলিতদের মাঝে ত্রাণ ও বীজ বিতরণ করেন প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক। পরে তিনি মোগলবাসা, চিলমারী রমনা এবং উলিপুর উপজেলার অনন্তপুর,গুনাইগাছ টি বাঁধের ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন। উলিপুরের অনন্তপুর ও চিলমারী রমনা এলাকা পরিদর্শন কালে তিনি ব্রহ্মপুত্রের ডানতীর রক্ষা প্রকল্প রক্ষা করতে বালু উত্তোলন বন্ধের উপর জোড় তাগিদ দেন।

শুক্রবার(২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে বৈরি আবহাওয়া উপেক্ষা করে কুড়িগ্রামের নদ-নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করতে এসে তিনি সাংবাদিক সহ উপস্থিত সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর রক্ষা প্রকল্প রক্ষা করতে হলে বালু উত্তোলন বন্ধ করতে হবে। হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। আপনারা মেহেরবানী করে লক্ষ রাখবেন কোন অসাধু ব্যবসায়ী এ পারে বালু উত্তোলন করতে না পারে। কোন ক্রমে যেন তীরে বালু উত্তোলনের ট্রলার ধাক্কা না লাগায়। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন সহ সকলকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করতে হবে।

বিকেলে কুড়িগ্রামের ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর রক্ষা প্রকল্প পরিদর্শন ও তিস্তা নদী পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি বলেন, বন্যার পানির কারণে নদী ভাঙ্গন সহ যে ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে তা রক্ষা করার জন্য বিভিন্ন প্রকল্প নেয়া হয়েছে। এছাড়াও নদী ড্রেজিংয়ের বড় প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। এসব বাস্তবায়ন করতে পারলে বন্যা ও নদী ভাঙ্গনের ক্ষতি থেকে গ্রামবাসী রক্ষা পাবে। তিস্তায় চীনের প্রস্তাবিত প্রকল্প প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২১টি প্রকল্প নিয়ে ডোনার কান্ট্রির সাথে কথা চলছে। এরমধ্যে তিস্তা প্রকল্প নিয়ে চীন আগ্রহ দেখিয়েছে ফলে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে। এছাড়াও প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, নদ-নদী ভাঙ্গন রোধে ড্রেজিংসহ বাঁধ নির্মাণ প্রকল্প চলমান রয়েছে। নদী ভাঙ্গন এলাকায় আমাদের প্রকল্প চলমান রয়েছে এবং প্রস্তাবিত প্রকল্প আছে। এরমধ্যে ১৩৭৬ কোটি টাকা তিনটি চলমান এবং ৭১৪ কোটি ও ৩৮৩ কোটি টাকার আরো দুটি প্রকল্প রয়েছে। কুড়িগ্রাম-গাইবান্ধায় বন্যার পানি নেমে এসে যে ক্ষতি করছে এটাকে রক্ষা করতে প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। নদী ড্রেজিং এ বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন চলছে এগুলো শেষ হলে মানুষ রক্ষা পাবে এটাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শনা এবং সেই নিদের্শনা অনুযায়ী আমরা কাজ করছি। তিনি আরো বলেন, বিগত ১০বছর পূর্বেও অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো ছিল না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের টাকার কোন সমস্যা নেই। রাতারাতি নদী ভাঙ্গন রোধ করা সম্ভব নয়। প্রকল্প বাস্তবায়নে টেকনিক্যাল কমিটিসহ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে কাজ করতে সময় প্রয়োজন হয়।

এ সময় নদী পরিদর্শনে তার সঙ্গে ছিলেন, কুড়িগ্রামে ২ আসনের এমপি মোঃ পনির উদ্দিন, কুড়িগ্রাম -১ সাংসদ আসলাম সওদাগর, কুড়িগ্রাম- ৩ এর এমপি আব্দুল মতিন,পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহমুদুল ইসলাম,পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক কেএম আমিনুল হক,কুড়িগ্রামে জেলা প্রশাসক রেজাউল করিম,পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন আহমেদ মন্জু, চিলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী বীরবিক্রম ,উপজেলা নির্বাহী অফিসার এডব্লিউ এম রায়হান শাহ,রংপুরের প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ প্রমুখ ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 dainikjonokotha.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com