রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৪:২৯ অপরাহ্ন

কুড়িগ্রামে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা জাতীয়করন ঘোষনার দাবিতে মানববন্ধন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
  • Update Time : রবিবার, ২৩ মে, ২০২১

বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার জাতীয়করণের দাবীতে কুড়িগ্রাম জেলার সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসার শিক্ষকগন জেলা প্রসাশক কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেছে।

রবিবার (২৩ মে) সকাল ১১ ঘটিকায় উক্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের জেলা সভাপতি মোঃ হায়দায় আলীর নেতৃত্বে উক্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশিদ, সহ-সভাপতি মোঃ হাসমত আলী, সাংগাঠনিক সম্পাদক মোঃ সাইফুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমান, প্রচার সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান,  অর্থ সম্পাদক মো: আব্দুল কাদের,  মোঃ বাদশা, মোঃ আকতার,  মোঃ লিয়াকত, মোঃ আলেপ উদ্দিন,  মোঃ সদরুজ্জামান, মোঃ আব্দুল লতিফ,  মোঃ আবুল কালাম,  মোঃ নওশাদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন,  ১৯৭৮ অডিনেন্স ১৭(২) ধারা মোতাবেক মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের শর্ত পূরণ সাপেক্ষে রেজিঃ প্রাপ্ত হন এবং তারপর থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিধি মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে এবং ১৯৯৮ ইং সনে একই পরিপত্রে রেজিষ্টার বেসরকারী প্রাইমারী ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে বিগত সরকারের সময়ে ধাপে ধাপে বেতন বৃদ্ধি হতে হতে ২০১৩ সনে  ৯ জানুয়ারী বর্তমান মহাজোট সরকার ২৬,১৯৩ টি বেসরকারী প্রাইমারী স্কুল জাতীয়করণ করে। অথচ একই সরকারী সিলেবাসভূক্ত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসায় সকাল ০৯ টা থেকে বিকাল ০৫ টা পর্যন্ত পাঠদান করা ও ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। অথচ মাস শেষে প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষকগন ২২-৩০ হাজার টাকা বেতন পায়। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী শিক্ষকগন তেমন কোন বেতন পান না তবুও প্রাথমিকের ন্যায় শিক্ষকতা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সভাপতি আরও বলেন, ২০১৮ সালে ১লা জানুয়ারী  থেকে ১৬ জানুয়ারী পর্যন্ত শিক্ষক সমিতি অবস্থান ধর্মঘট ও অনশন চলাকালীন সময়ে সরকারের নির্দেশে সচিব মহোদয় আন্দোলন স্থলে এসে শিক্ষকদের দাবী মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি। ১৫১৯ টি ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকগন সর্বসাকুল্যে প্রধান শিক্ষক ২৫০০ এবং সহকারী শিক্ষক ২৩০০ টাকা করে ভাতা পায় বাকি রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্ত মাদ্রাসাগুলোর শিক্ষকগন ৩৭ বছর যাবৎ বেতন ভাতা হতে বঞ্চিত। যা এ বাজারে অমানবিক, শিক্ষকদের অবমাননা ছাড়া কিছুই না। উক্ত সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মোঃ আব্দুর রশিদ বলেন, চলমান বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস কোভিট-১৯ এর প্রভাবে সারা দেশের বেতন বঞ্চিত কর্মরত স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা মানবেতর জীবন যাপন করছে।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2020 dainikjonokotha.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com